Skip to content

কে এই তরুণ যুবক যার সাথে নিজের জন্মদিন পালন করলেন রতন টাটা ?

    বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় শিল্পপতিদের একজন হলেন ব্যবসায়ী রতন টাটা(Ratan Tata)। তিনিও প্রচুর সাফল্যের সাথে এই নাম অর্জন করেছেন। 28 ডিসেম্বর, 2021 মঙ্গলবার রতন টাটা তার 84তম জন্মদিন উদযাপন করেছেন। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় তার জন্মদিন উদযাপনের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। এই ভিডিওতে রতন টাটাকে একটি চেয়ারে বসে সামনের টেবিলে একটি ছোট কাপ কেক কাটতে দেখা যাচ্ছে।

    রতন টাটা একটি ছোট কেকের উপর মোমবাতি ফু দিয়ে নিভিয়ে কেক কাটলেন। তারপর তার সামনের টেবিলে বসা যুবকটি রতন টাটার কাছে এসে তার কাঁধে হাত রাখে। তারপর সে বসে রতন টাটাকে এক টুকরো কাপ কেক খাইয়ে দেয়। কিন্তু সকলের মনে একটি প্রশ্ন, কে এই যুবক? আসুন জেনে নেওয়া যাক। আজকাল ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় খুব ভাইরাল হচ্ছে, যেখানে রতন টাটা জাঁকজমকপূর্ণ এর পরিবর্তে একটি সস্তা কেক কেটে তার জন্মদিন উদযাপন করেছেন।

    Ratan Tata

    এই উদযাপনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল যে তিনি তার জন্মদিনটি অত্যন্ত সরলতার সাথে উদযাপন করেছেন। বর্তমানে এই ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গেছে। কিন্তু এই ভিডিওতে অনেকেই ভাবছেন কে এই যুবক যিনি রতন টাটার সঙ্গে জন্মদিন উদযাপন করলেন? জানলে অবাক হবেন এই ছেলের সাথে রতন টাটার কোন পারিবারিক সম্পর্ক নেই। কিন্তু তারপরও তার সঙ্গে রতন টাটা জন্মদিন উদযাপন করলেন তা অবাক করার মতো। তবে রতন টাটার সঙ্গে এই যুবকের বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে।

    আসলে ভিডিওতে যে ছেলেটিকে দেখা যাচ্ছে যিনি রতন টাটার কাঁধে হাত রেখে কেক খাওয়ালেন তিনি শান্তনু নাইডু। শান্তনু রতন টাটার ব্যক্তিগত সচিব(PA)। যাইহোক, রতন টাটা তরুণদের মধ্যে খুব জনপ্রিয়। তার বক্তৃতা এবং গল্প প্রতিনিয়ত সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হচ্ছে। কিন্তু কম লোকই জানেন যে একজন যুবক 85 বছর বয়সের রতন টাটার সাথে প্রাইভেট সেক্রেটারি হিসাবে কাজ করেন।মুম্বাইয়ের বাসিন্দা শান্তনু নাইডু এমন একজন ভাগ্যবান যুবক, যার দ্বারা মুগ্ধ হয়ে রতন টাটা নিজেই ফোন করেছিলেন এবং বলেছিলেন যে আপনি যা করেন তাতে আমি খুব মুগ্ধ।

    তুমি কি আমার সহকারী হবে? শান্তনু তার সাফল্যের গল্প লিখেছেন ফেসবুক পেজে ‘হিউম্যানস অফ বোম্বে’। এর পরই তিনি আলোচনায় চলে আসেন। শান্তনু বলেছেন যে 2014 সালে তার জীবন বদলে যায়। প্রায় পাঁচ বছর আগে তিনি একটি কুকুরকে সড়কে দুর্ঘটনায় মারা যেতে দেখেছিলেন। কুকুরদের এভাবে মরার হাত থেকে বাঁচানোর কথা ভাবতে লাগল শান্তনু। এ ঘটনার পর শান্তনু কুকুরের জন্য একটি গলার কলার তৈরি করার কথা চিন্তা করেন।

    See also  না বলিউড না সাউথ, দেশের জন্য সিনেমা তৈরি করতে চাই! এই মন্তব্যে দেশবাসীর মন জয় করলেন অভিনেতা রামচরণ

    একটি চকচকে কলার যা চালকরা দূর থেকে দেখতে পায়। এবং তিনি এই কলার তৈরি করে ফেলেন যার ফলে অনেক কুকুর সড়ক দুর্ঘটনা থেকে রেহাই পায়। এই অত্যাধুনিক আবিষ্কার রতন টাটার মন জয় করে নেয়। এবং তারপরই সান্তনু রতন টাটার সহকারী হিসেবে কাজ করার সুযোগ পান।