Skip to content

দেখে নিন বাংলার সবচেয়ে জাগ্রত ৭ টি কালী মায়ের মন্দির, ভক্তদের সব মনোবাসনা মা করেন পূর্ণ!

    img 20221018 221750

    বাংলায় প্রতি বাড়ি বাড়ি ধুমধাম করে প্রায়শই যে পুজো হতে দেখা যায় তা হল কালি পূজা। বেশিরভাগ বাড়িতেই দেখা যায় মা-এর কাছে কোনও কিছু বাসনা পূরণের সুপ্ত ইচ্ছায় মানত করে থাকেন, কারণ বাঙালিদের দৃঢ় বিশ্বাস থাকে যে মা কালি ভক্তদের কখনও খালি হাতে ফেরত পাঠান না। তাই সারা রাজ্য জুড়ে অসংখ্য কালি মন্দির রয়েছে, আর এই মন্দিরগুলোর নানা মিথ, পুরাকাহিনী ও লোকবিশ্বাস রয়েছে। চলুন আজ এই প্রতিবেদনে আপনাদের এমন ৬ টি জাগ্রত কালিমন্দির সম্পর্কে জানাব, যেখানে দেবী মা কোনও দিনও তার ভক্তদের খালি হাতে ফেরান না।

    ১) মুর্শিদাবাদের কীর্তিশ্বরী মন্দির
    (Kirtishwari Temple in Murshidabad)

    Kirtishwari Temple

    পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলায় অবস্থিত এই মন্দিরটি ৫১ তম সতীপীঠের সবচেয়ে অন্যতম একটি মন্দির। প্রসিদ্ধ এই কালি মন্দিরটি অত্যন্ত জাগ্রত। এই মন্দিরে কোনও বিগ্রহ পুজো না করে একটি কালো পাথরকেই বিগ্রহ রূপে পুজো করা হয়ে থাকে। কথিত আছে, এখানে মা সতীর মুকুট পড়েছিল।

    ২) বোলপুরের কঙ্কালীতলা মন্দির (Kankalitala temple in Bolpur)

    Kankalitala temple

    বীরভূম জেলার বোলপুরে অবস্থিত এই সতীপীঠ অত্যন্ত জাগ্রত এবং এখানে কোনও বিগ্রহের পুজো হয় না। এই মন্দিরের কুন্ডটি খুবই পবিত্র বলে মনে করা হয় কারণ কথিত আছে, ভগবান শিব এক কুণ্ডের মধ্যে গুপ্ত অবস্থায় রেখে গিয়েছিলেন দেবীর কোমড়কে। এখানে দেবীর কোমড় পতিত হয়েছিল।

    ৩) ঝাড়গ্রামের কনকদুর্গা মন্দির (Kanakdurga temple in Jhargram)

    Kanakdurga temple

    ঝাড়গ্রামের চিল্কিগড়ে অবস্থিত এই কনকদুর্গা মন্দির জঙ্গলে ঘেরা খুবই নিঝুম একটি জায়গায় রয়েছে। মন্দিরটি অত্যন্ত জাগ্রত এবং এখানে নরবলি প্রথার চালু ছিল। ঢুলুঙ নদীর তীরে এই মন্দিরটি অবস্থিত এবং মন্দিরের আরাধ্য দেবী কনক দুর্গা। এই দেবীর পুজোর চল আছে কালিকা পুরাণ এবং তন্ত্র মতে। জানা গেছে, এই দেবীর ভোগে হাঁসের ডিমও দেওয়া হয়।

    See also  এশিয়ার ৭ টি সেরা বিশ্ববিদ্যালয় যেখানে পড়া যে কোন ছাত্রের স্বপ্ন!তালিকায় রয়েছে বাংলার এই বিশ্ববিদ্যালয়

    ৪) গড়বেতার সর্বমঙ্গলা মন্দির (Garbeta’s Sarvamangala Temple)

    Garbeta's Sarvamangala

    কথিত আছে, এই মন্দিরের দেবীকে তুষ্ট করতে রাজা বিক্রমাদিত্য শব দেহের উপর বসেছিলেন। এছাড়াও শোনা যায় স্বয়ং বিশ্বকর্মার হাতে এই মন্দিরটি নির্মাণ হয়েছিল। শোনা যায়, মাত্র এক রাতের মধ্যেই এখানে সাতটি পুকুর খনন করা হয়েছিল। এই পুকুরের মধ্যেই মন্দিরটি নির্মাণ করা হয়। এখানে পুজিত দেবী সর্বমঙ্গলা দেবীর মূর্তি অষ্টধাতু দিয়ে তৈরি। এছাড়াও এখানে দশভূজার মূর্তিও বর্তমান।

    ৫) বীরভূমের তারাপীঠ (Tarapeeth of Birbhum)

    Tarapeeth

    তারাপীঠ হল ভক্তদের কাছে পশ্চিমবঙ্গের অন্যতম জাগ্রত ও প্রসিদ্ধ কালী মন্দির। কথিত আছে, এখানে দেবীর ত্রিনয়ন পতিত হয়েছিল। এখানে দেবী মা তারা রূপে পুজিত হন। এই মন্দির নিয়ে লোকমুখে অনেক কথাই শোনা যায়। আমরা প্রায় সকলেই জানি, সাধক বামাক্ষ্যাপা  এই মন্দিরে সিদ্ধিলাভ করে মা -এর পুজো করতেন। পাথরের উপর মা তারার তারার প্রতিকৃতি এবং পদচিহ্ন বসিয়ে পুজো করা হয়।

    ৬. কলকাতায় দক্ষিণেশ্বর কালী মন্দির (Dakshineswar Kali Temple in Kolkata)

    Dakshineswar Kali Temple

    দক্ষিণেশ্বরের মন্দির কলকাতার তথা পশিমবঙ্গের অন্যতম বিখ্যাত কালী মন্দির।  এখানে মা ভবতারিণীর আরাধনা করা হয়। এই মন্দির মা কালীর স্বপ্নাদেশ পেয়ে প্রতিষ্ঠা করেন রানী রাসমণি। উনবিংশ শতাব্দীর পরম যোগী শ্রীরামকৃষ্ণ দেব এই মন্দিরে দেবী কালিকাকে মাতৃ রূপে পুজো করতেন।

    ৭. কলকাতার কালীঘাট মন্দির (Kalighat Temple in Kolkata)

    Kalighat Temple

    দেবী সতীর ডান পায়ের আঙুল পড়েছিল কালীঘাট মন্দিরে। অন্যান্য মন্দিরের মতন এই মন্দির অত্যন্ত জাগ্রত। এখানে ভক্তরা তার মন বাসনা পূরণের জন্য দেবীর পূজা করেন।