Skip to content

করোনায় চাকরি হারিয়ে শুরু করেছিলেন এই দুর্দান্ত ব্যবসা, আজ মাস গেলে আয় করছেন 2 লক্ষ টাকা

    করোনা মহামারী বিশ্বে একেবারে ত্রাহি ত্রাহি রব ফেলে দিয়েছে। বহু মানুষের মৃত্যুর সাথে করোনার কবলে পড়ে অনেক মানুষ অনাহারে দিন কাটিয়েছে। এমনকি বহু মানুষের রুজি-রোজগারও গেছে। আজকে এমনই তিন বন্ধুর গল্প নিয়ে আসব যারা করোনার মুহূর্তে চাকরি হারিয়ে চা বিক্রি করে মাসে লাখ টাকা উপার্জন করেন।

    আনন্দু অজয় ​​(25), মহম্মদ শাহনওয়াজ (25) এবং মহম্মদ সাইফি (28) কেরালার কোল্লাম জেলার পল্লীমুক্কুর বাসিন্দা। ইউনূস ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি কান্নানল্লুর থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করেন। অন্যান্য মানুষের মতো করোনা এই বন্ধুদের জন্যও সমস্যা নিয়ে এসেছে। কোভিডের সময় তাদের চাকরি হারাতে হয়েছিল। চাকরি হলো অর্থ উপার্জনের মাধ্যম, এমন পরিস্থিতিতে সেই উপায় না থাকায় জীবিকা নির্বাহ করা কঠিন। এই তিন বন্ধুও ভেবেচিন্তে নিজেদের ব্যবসা করার সিদ্ধান্ত নেন।

    BTech chai wala

     

    আনন্দু জানান, তিনি বাইজুস-এ সেলস অ্যান্ড বিজনেস ডেভেলপমেন্টে কাজ করতেন, যেখানে তার বেতনও বেশ ভালো ছিল। করোনার সময় চাকরি হারান তিনি। সেই সময় বন্ধু মোহাম্মদ সাইফির জীবনও চলছিল নানা প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়ে। অপরদিকে সাইফির ভাই মোহাম্মদ ভারতের মধ্যপ্রাচ্যে কর্মরত ছিলেন, কিন্তু কোভিডের কারণে তাকে দেশে ফিরতে হয়েছিল। তারপর এই তিনজন মিলে “B.Tech Chai” (B.Tech Chai) নামে একটি চা স্টার্টআপ শুরু করে।

    যেকোনো ব্যবসা শুরু করতে অর্থের প্রয়োজন হয়। আর ব্যবসা শুরু করার মতো টাকা তাদের কাছে ছিল না। তারপর একটি চায়ের স্টল স্থাপনের কথা ভাবেন, যার জন্য খুব বেশি অর্থের প্রয়োজন হবে না। এই ব্যবসা শুরু করার অন্যতম কারণ ছিল তার চায়ের প্রতি ভালোবাসা। ব্যবসা শুরুর প্রথমে বিনিয়োগের সমস্যা দেখা দেয়।   পরিবারের সদস্যদের কাছে থেকেও তারা তেমন সাহায্য পাননি।  কিন্তু যে কোনো উপায়ে এই ব্যবসা শুরু করার চিন্তা তার মনে নিশ্চিত ছিল। তাই অবশেষে তিন বন্ধু তাদের জমানো টাকা জোগাড় করে তারপর কিছু টাকা ধার নেয়।  এভাবে  ২০২১ সালে B.Tech চা ব্যবসা শুরু করেন তারা।

    See also  বাংলাদেশের এই ৯ জন অভিনেত্রীর সৌন্দর্যের কাছে পাত্তা পাবে না বলিউডের তাবড় তাবড় অভিনেত্রীরাও!

    B.tech chaiwala

    চা এবং খাদ্য প্রেমী আনন্দু চা স্টার্টআপের (B.Tech Chai) জন্য চা নিয়ে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার পর 50 টি বিভিন্ন ধরণের চা দিয়ে তাদের ব্যবসা শুরু করেছিলেন। তবে বর্তমানে তার কাছে 100 টি বিভিন্ন ধরণের চা পাওয়া যায়, যার মধ্যে রয়েছে আসাম চা, গ্রিন টি, মাশালা চাই, কাশ্মীরি কাহওয়া, বাটার টি, চায়ের জাতগুলির মধ্যে রয়েছে শির চা, দার্জিলিং চা। এবং নীলগিরি চা পাশাপাশি আনারস চা, স্ট্রবেরি চা, ভ্যানিলা চা, পুদিনা চা এবং চকোলেট চা।

    আনন্দু বলেছেন যে তাদের কাছে জিঞ্জা নামে একটি জনপ্রিয় চা পাওয়া যায়, যেটিতে 4টি ভেষজ এবং 10টি মশলা মিশিয়ে তৈরি করা হয়।  এই চাকে আরও ভালো ও সুস্বাদু করতে ভালো মানের গোপন মশলা ব্যবহার করা হয়। আনন্দু বলেন চায়ের ব্যবসা (B.Tech Chai Startup) থেকে তাদের প্রতিদিন 7 হাজার টাকা আয় হয়, সে অনুযায়ী মাসে 2 লাখ টাকারও বেশি আয় করেন।