Skip to content

মাটির তৈরি ফ্রিজ বানিয়ে তাক লাগালেন এই দশম ফেল ব্যক্তি, বিদ্যুৎ ছাড়াই হবে কাজ

    গ্রীষ্মের ঋতুতে, গলার তৃষ্ণা না মেটানো পর্যন্ত সবাই ঠান্ডা জিনিস বিশেষ করে ঠান্ডা জল খেতে চায়।  এমন পরিস্থিতিতে মানুষ ফ্রিজের পানি খায়, যা ঠান্ডা হলেও আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়।  এর বাইরে, NFHS 5-এর তথ্য অনুযায়ী, মাত্র ৩৭ শতাংশ মানুষের কাছে একটি ফ্রিজ রয়েছে।  এই পরিসংখ্যানের পরিপ্রেক্ষিতে, একজন ব্যক্তি এমন একটি ফ্রিজ তৈরি করেছেন, যা সাশ্রয়ী এবং পরিবেশ বান্ধব পাশাপাশি ফল এবং শাকসবজিকে অনেক দিন তাজা রাখে।

    Mitticool fridge

    কে সেই ব্যক্তি?

    আমরা মনসুখভাই প্রজাপতির (Mansukhbhai Prajapat) কথা বলছি, যিনি গুজরাট থেকে এসেছেন এবং কুমোর বর্ণের অন্তর্গত।  তিনি একটি বৈদ্যুতিক ফ্রিজ উদ্ভাবন করেছেন যা পরিবেশ বান্ধব এবং ফল, দুধ, শাকসবজি অনেক দিন তাজা রাখে।  এ ছাড়া তারা গতানুগতিক ধারা ছেড়ে নতুন প্রযুক্তিতে মৃৎশিল্প তৈরি করছেন। মনসুখভাই দশম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন কিন্তু ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষায় ফেল করেছেন।  কুমোর সম্প্রদায় থেকে আসা, তার পরিবার প্রথম থেকেই মৃৎশিল্প তৈরি করত।  একজন কুমারের জীবন কেমন তা কারো কাছে গোপন নয়।  তিনি বলেন, মৃৎপাত্র তৈরির জন্য তার মা সকালে ঘুম থেকে উঠে মাটি আনতেন যা থেকে তার বাবা এবং পরিবারের বাকি সদস্যরা একসঙ্গে বাসন তৈরি করতেন।  তবে যে রকম পরিশ্রম করে আয় হয়নি, যার কারণে বাড়ির অবস্থাও ভালো ছিল না।

    Mitticool fridge

    দশম শ্রেণীতে ফেল:-

    তাদের ছেলে মেয়ে শিক্ষিত হয়ে সমাজে তাদের সম্মান বৃদ্ধি করুক এবং উন্নত জীবন যাপন করুক এটাই প্রত্যেক পিতামাতার কামনা।  মনসুখের বাবা-মাও তাই চেয়েছিলেন কিন্তু মনসুখ তাদের আস্থা রাখতে পারেনি।  তিনি ১০ শ্রেনীর পরীক্ষায় ফেল করেন, ফলস্বরূপ তিনি তার পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন না।

    বাড়ির অবস্থা ভালো না থাকায় মনসুখ আর পড়াশোনা না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।  এমতাবস্থায় মাত্র ১৫ বছর বয়সে তিনি তার বাবার খোলা চা রক্ষে কাজ শুরু করেন।  তিনি বলেন, একবার একটি টালি তৈরির কোম্পানির মালিক চা খেতে আসেন।  এখন কে জানত এটাই তার জীবনের টার্নিং পয়েন্ট।  টালি কারখানার মালিক তাকে তার জায়গায় কাজ করার প্রস্তাব দেন।

    নিজের ব্যবসা শুরু করার ধারণাটি কীভাবে এলো?

    Mitticool fridge

    তবে ওই কোম্পানিতে কাজ করার জন্য তাকে মাত্র ৩০০ টাকা বেতন দেওয়া হয়।  এমতাবস্থায় তার মাথায় নিজের ব্যবসা শুরু করার চিন্তা এলো, যেটি শুরু করতে তিনি এক শেঠের কাছে ঋণ হিসেবে মোটা অংকের ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন।  বাড়ির দারিদ্র্য দেখে তার পরিবারের সদস্যরা এতে রাজি না হওয়ায় এত বড় অঙ্কের টাকা শোধ করতে পারার চিন্তা তাকে তাড়িত করছিল।  কিন্তু মনসুখভাই নিজের ব্যবসা শুরু করার সিদ্ধান্ত নেন, ফলে সংসারের সমস্যা দেখেও ৩০ হাজার টাকা ধার নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন।

    See also  শুধু সিনেমাতে নয় বাস্তব জীবনেও হিরো আল্লু অর্জুন, অনাথ মেয়ের সমস্ত দায়ভার নিলেন নিজের কাঁধে!

    এই ব্যবসার শুরুতে তিনি প্রথমে দূষণ কমাতে একটি প্যান তৈরি করেন।  এরপর তিনি ২২০০ বর্গফুট জমিতে ব্যবসা করেন।  মনসুখভাই ২ বছরের কঠোর পরিশ্রমের পর সফলতা পান এবং তিনি ওয়াটার পিউরিফায়ার উদ্ভাবন করেন।  ধীরে ধীরে তার ব্যবসা তখনও গতি পাচ্ছিল যে ২০০১ সালে গুজরাটে ভূমিকম্প হয় যাতে তার অনেক ক্ষতি হয়।  এই ঘটনার পরই তিনি একটি মাটির ফ্রিজ আবিষ্কারের কথা ভেবেছিলেন যা বিদ্যুৎ ছাড়া চলে।

    মনসুখভাই ভাবলেন, কেন মাটি থেকে এমন পাত্র বানাবেন না, যেগুলো চালাতে বিদ্যুৎ লাগে না এবং যাতে ফল ও সবজি সতেজ থাকে।  একই সঙ্গে তিনি এও চেয়েছিলেন যে, যাদের কাছে বেশি টাকা নেই তারাও এটি কিনতে পারে।  এই চিন্তা নিয়েই তিনি এগিয়ে যান এবং দীর্ঘ ২ বছর পর মিটিকুল ফ্রিজ তৈরিতে সফল হন।

    আপনি জানেন, ফ্রিজের কাজ হল এতে রাখা জিনিসের সতেজতা বজায় রাখা।  মনসুখভাইয়ের বানানো মাটির ফ্রিজটা বাকি ফ্রিজের মতোই।  পার্থক্য শুধু এই যে বাজারে পাওয়া যায় এমন ফ্রিজের দাম অনেক বেশি, যেটা সবাই কিনতে পারে না এবং যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।  কিন্তু মাটির ফ্রিজের দাম খুবই সস্তা এবং এতেও আপনি ওষুধ, ফলমূল, শাকসবজি ইত্যাদি ৫ দিন রাখতে পারবেন।  মনসুখভাই প্রজাপতির তৈরি মাটির ফ্রিজ যা চলে বিদ্যুৎ ছাড়া।

    নিজের কোম্পানি শুরু করেন

    মনসুখভাইয়ের মনোবল বৃদ্ধি পায় যখন তিনি একটি রেফ্রিজারেটর তৈরি করেন যা বিদ্যুৎ ছাড়া চলে এবং ফলস্বরূপ তিনি নিজের কোম্পানি স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেন।  একটি ব্যবসা শুরু করতে প্রচুর পরিমাণে প্রয়োজন।  তারও বিশাল পুঁজির প্রয়োজন ছিল, যার জন্য তিনি ৭০০০০০ লোন নিয়েছিলেন এবং ২০০২ সালে নিজেকে “MittiCool” নামে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন।

    বহু নারীকে চাকরি দেওয়া হয়েছে

    বর্তমানে মনসুখভাই প্রজাপতি রান্নাঘরে ব্যবহৃত প্রায় সব জিনিসই মাটি দিয়ে তৈরি করছেন।  এ পর্যন্ত তিনি মাটি থেকে আড়াই শতাধিক জিনিস উদ্ভাবন করেছেন।  এছাড়া তিনি অনেক নারীকে চাকরির সঙ্গে যুক্ত করে নিজের পায়ে দাঁড় করিয়েছেন।  দেশের পাশাপাশি বিদেশেও মাটির ফ্রিজের প্রচুর চাহিদা রয়েছে।  তার তৈরি ছোট সাইজের ফ্রিজের দাম ৩ হাজার টাকা।

    মনসুখভাই তার অনন্য কাজের জন্য অনেক সম্মানে ভূষিত হয়েছেন।  তিনি তার নামে অনেক “ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড” জিতেছেন পাশাপাশি তিনি “প্যারিস অ্যাওয়ার্ড”-এও পুরস্কৃত হয়েছেন।  এখন যারা এ কাজে আগ্রহী তাদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন তারা।  আমরা আপনাকে বলি যে, তিনি কেবল তার কাজ চালিয়ে যাননি, আরও এগিয়ে গেছেন এবং এখন গোবর থেকে কাঠ তৈরির প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

    অধ্যায়টি কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১ তম শ্রেণীতে এবং আমেরিকার সিবিএসইতে মনসুখ ভাইয়ের জীবন এবং আবিষ্কার সম্পর্কে পড়ানো হয়, যিনি গুজরাটের “গৌরব” দ্বারা সম্মানিত।