Skip to content

দেনার দায়ে অবশেষে বিক্রি হতে চলেছে রিলায়েন্স

সম্পূর্ণ ঋণে ডুবে যাওয়ার পর বিক্রি হতে চলেছে বিখ্যাত ব্যবসায়ী এবং রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের মালিক মুকেশ আম্বানির ভাই অনিল আম্বানির কোম্পানি রিলায়েন্স নেভাল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড। বড় শিল্পপতিরা এই সংস্থাটি কিনতে আগ্রহ দেখিয়েছেন। শোনা যাচ্ছে আদানির কোম্পানিও রিলায়েন্সের এর কোম্পানির জন্য বিড করতে চলেছে।

এখন দেখার বিষয় সর্বোচ্চ দর করে কে হবেন রিলায়েন্সের নতুন মালিক। আপনিও যদি জানতে চান তাহলে শেষ পর্যন্ত প্রতিবেদনটি পড়ুন। ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক(RBI) দ্বারা নিযুক্ত প্রশাসক 11 মার্চ থেকে 25 মার্চ পর্যন্ত বিড জমা দেওয়ার শেষ তারিখ বাড়িয়েছে। শাসনের অভাব এবং অর্থ প্রদানের ত্রুটির কারণে RBI 29 নভেম্বর রিলায়েন্স ক্যাপিটালের বোর্ড ভেঙে দিয়েছে।

রিলায়েন্স ক্যাপিটালের কাছে আগ্রহের প্রকাশ জমা দেওয়া অন্যান্য সংস্থাগুলির মধ্যে রয়েছে Arpwood, Verde Partners, Multiples Fund, Nippon Life, JC Flowers, Brookfield, Oaktree, Apollo Global, Blackstone এবং Hero Fincorp. এটি তৃতীয় বৃহত্তম নন-ব্যাংকিং আর্থিক সংস্থা (NBFC) যার বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সম্প্রতি দেউলিয়া এবং দেউলিয়া কোডের অধীনে দেউলিয়া কার্যক্রম শুরু করেছে। অন্য দুটি কোম্পানি হল Srei Group NBFC এবং দেওয়ান হাউজিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন (DHFL)।

Anil Ambani

• পুরো কোম্পানির জন্য বিড করা হয়েছে….

কিছু সম্ভাব্য দরদাতাদের অনুরোধে দরপত্র জমা দেওয়ার সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে, যারা আগ্রহের প্রকাশ (EoI) ফাইল দাখিল করার জন্য আরও কিছু সময় চেয়েছিল। সূত্র অনুযায়ী, বেশির ভাগ দরদাতাই পুরো কোম্পানির জন্য বিড করেছেন। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক এই নন-ব্যাঙ্কিং আর্থিক সংস্থার প্রশাসক হিসাবে ব্যাঙ্ক অফ মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন নির্বাহী পরিচালক নাগেশ্বর রাও ওয়াইকে নিযুক্ত করেছিল। এই বছরের ফেব্রুয়ারির শুরুতে, আরবিআই-নিযুক্ত প্রশাসক রিলায়েন্স ক্যাপিটাল থেকে আগ্রহ প্রকাশের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

• দরদাতাদের দুটি বিকল্প আছে…..

দরদাতাদের দুটি বিকল্প আছে। প্রথম বিকল্প হল সম্পূর্ণ কোম্পানির জন্য বিড করা (রিলায়েন্স ক্যাপিটাল লিমিটেড)। মোট আটটি সাবসিডিয়ারি রিলায়েন্স ক্যাপিটালের অধীনে আসে। দরদাতারাও এই এক বা একাধিক কোম্পানির জন্য বিড করতে পারেন।

• এই আটটি সাবসিডিয়ারি কোম্পানি….

রিলায়েন্স ক্যাপিটালের সাবসিডিয়ারি সম্পর্কে কথা বললে গেলে, এতে রয়েছে রিলায়েন্স জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, রিলায়েন্স নিপ্পন লাইফ ইন্স্যুরেন্স, রিলায়েন্স সিকিউরিটিজ, রিলায়েন্স অ্যাসেট রি-কনস্ট্রাকশন কোম্পানি, রিলায়েন্স হোম ফাইন্যান্স এবং রিলায়েন্স কমার্শিয়াল ফাইন্যান্স।

• প্রতিষ্ঠানটির ওপর রয়েছে 40 হাজার কোটি টাকার বিশাল ঋণ….

2021 সালের সেপ্টেম্বরে, রিলায়েন্স ক্যাপিটাল তার বার্ষিক সাধারণ সভায় শেয়ারহোল্ডারদের বলেছিল যে কোম্পানির মোট ঋণ হয়েছে 40 হাজার কোটি টাকা। ডিসেম্বর এর শেষে কোম্পানির লোকসান 1759 কোটি টাকায় নেমে এসেছে। ডিসেম্বর 2020 শেষে কোম্পানির মোট লোকসান ছিল 3966 কোটি টাকা। রিলায়েন্স ক্যাপিটাল 1986 সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।