Skip to content

আমেরিকার চাকরি ছেড়ে গ্যারেজে অফিস বানিয়ে, এই দুর্দান্ত আইডিয়ার জেরে আজ দাঁড় করিয়েছেন 37 হাজার কোটি টাকার কোম্পানি!

ভারতের সবচেয়ে বড় তিনটি ই-কমার্স পোর্টাল Flipkart, Snapdeal এবং Myntra-এর প্রতিষ্ঠাতা বনসাল(Bansal) গোটা ভারতে সুপরিচিত। কিন্তু বনসাল হলেন অন্য একজন যিনি ই-কমার্স ব্যবসার জন্য এমন একটি এলাকা বেছে নিয়েছেন যা তার বিশাল ব্যবসায়িক সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও দৃষ্টির বাইরে।

Peyush Bansal

পীযূষ বানসাল(Peyush Bansal), যিনি 2010 সালে লেন্সকার্ট(Lenskart) নামে একটি অনলাইন অপটিক্যাল স্টোর শুরু করেছিলেন, তিনি আজ দেশের অন্যতম সফল স্টার্টআপ উদ্যোক্তা কিন্তু সাফল্যের এই স্তরে পৌঁছতে তিনি অনেক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন৷ পীযূষ বনসালের বাবা, একজন চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট ছিলেন, চেয়েছিলেন তার ছেলে কঠোর পড়াশোনা করুক এবং একটি ভাল চাকরি করুক।

বাবা কখনো সন্তানের লেখাপড়ায় ব্যর্থ হতে দেননি। পীযূষও তার বাবাকে হতাশ না করে ভাল পড়াশোনা করেছেন এবং কানাডা থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অর্জনের পরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মাইক্রোসফ্টে যোগ দিয়েছেন। এখানে তার বার্ষিক প্যাকেজটিও খুব ভাল ছিল, কিন্তু কয়েক বছর কাজ করার পরে, তিনি চাকরিতে বিরক্ত হন।

Peyush Bansal

2007 সালে, তিনি ভারতে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। পীযূষের সিদ্ধান্তে রেগে যান তার বাবা-মা। ছেলেকে বোঝানোর চেষ্টা করলেও পীযূষ রাজি হননি। দেশে ফিরে কোনো কোম্পানিতে কাজ না করে নিজের ব্যবসা শুরু করার কথা ভাবতে শুরু করেন পীযূষ। সেই সময়ে ভারতে ই-কমার্স একটি নতুন ধারণা ছিল এবং এই ক্ষেত্রে প্রচুর সম্ভাবনা ছিল।

পীযূষ একটি ক্লাসিফাইড ওয়েবসাইট setchmencampus.com চালু করেন। এই ওয়েবসাইট শিক্ষার্থীদের আবাসন, বই, কারপুল সুবিধা, পার্টটাইম চাকরির সুযোগ ইত্যাদি প্রদান করে। এই ওয়েবসাইটটি তিন বছর ধরে চলেছিল। 2010 সালের মধ্যে, ভারতে অনলাইন ব্যবসা খুব দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছিল।

Peyush Bansal

এই স্থানটিতে প্রবেশ করতে, তিনি চশমা, গহনা, ঘড়ি এবং ব্যাগের অনলাইন বিক্রয়ের জন্য চারটি ওয়েবসাইট, lenskart.com, jewelry.com, watchkart.com এবং bags.com চালু করেন।পরিবর্তিত সময়ের সাথে, পীযূষ সম্পূর্ণভাবে lenskart.com-এ মনোনিবেশ করেন এবং এটিকে দেশের বৃহত্তম অনলাইন অপটিক্যাল স্টোরে পরিণত করতে সক্ষম হন।

আজ Lenskart সমস্ত আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সহ দেশের সমস্ত বড় শহরে তার অফলাইন স্টোর খুলেছে। শুধু তাই নয়, বর্তমানে কোম্পানিটি তার 500 টি আউটলেটের সাহায্যে প্রতি মাসে 1 লাখেরও বেশি মানুষকে সেবা দিচ্ছে। Lenskart ফ্র্যাঞ্চাইজি মডেল গ্রহণ করে সারা দেশে তার ব্যবসা সম্প্রসারণ করছে।

Peyush Bansal

লেন্সের ব্যবসায় প্রচুর লাভ রয়েছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। কখনও কখনও 500% পর্যন্ত লাভের মার্জিন সম্ভব। আর প্রযুক্তির মাধ্যমে এত লাভজনক ব্যবসা শুরু করা সত্যিই বৈপ্লবিক। আর এই কারণেই লেন্সকার্ট দিন দিন বাড়ছে এবং বর্তমানে কোম্পানির বাজার মূল্য প্রায় 11000 কোটি টাকার বেশি।