Skip to content

আগামী 24 ঘন্টার মধ্যে প্রবল বর্ষণে ভিজতে চলেছে বাংলার একাধিক জেলা

    আবহাওয়া দপ্তর রাজ্যবাসীকে দিল এক সুখবর। ভ্যাপসা গরমের হাত থেকে খুব শীঘ্রই রেহাই পাবে রাজ্যবাসী। বঙ্গোপসাগরের উপর নিম্নচাপ ঘনীভূত হচ্ছে এবং এর জেরে সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহের প্রথম দিক থেকেই ভারী বর্ষণ হতে পারে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে। আসুন একনজরে আবহাওয়ার পূর্বাভাস জেনে নেওয়া যাক।

    দক্ষিণবঙ্গের আবহাওয়া ও পূর্বাভাস

    দক্ষিণবঙ্গের জেলায় আগামী সোমবার ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে। উপকূলের তিনটি জেলা, দুই 24 পরগনা সহ পূর্ব মেদিনীপুরে ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানাচ্ছে আব’হাওয়া দপ্তর। তাছাড়াও হুগলি, নদিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রামে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকছে। সাথে বজ্রবিদ্যুৎ এর পূর্বাভাস রয়েছে। বিভিন্ন প্রান্তের এই প্রবল বর্ষণের প্রধান কারণ হিসেবে দেখানো হচ্ছে বঙ্গোপসাগরের উপর তৈরি নিম্নচাপ। আর এই প্রবল বর্ষণের ফলে রাজ্যবাসী ভ্যাপসা গরম থেকে রেহাই পাবেন। পুজোর আগে আবহাওয়া ঠান্ডা হতে চলেছে এই বর্ষণে।

    আবহাওয়া

    উত্তরবঙ্গের আবহাওয়া ও পূর্বাভাস।

    উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন অঞ্চল যেমন দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, কলিম্পং ও বিক্ষিপ্তভাবে ভারী বর্ষণ এর সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর। হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে মালদা, উত্তর দিনাজপুর, ও দক্ষিণ দিনাজপুরে। উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে পাহাড়ি এলাকায় এই বর্ষণের ফলে ধ্বস নামার সম্ভাবনা প্রবল, এই বিষয়টি উত্তরবঙ্গের বাসিন্দাদের জন্য উদ্বেগের কারণ হতে পারে। সোমবার বেলা বাড়ার সাথে সাথে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বাড়বে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর।

    শহর কলকাতার আবহাওয়া কি রকম থাকবে!

    আবহাওয়া দপ্তরের দেওয়া খবর অনুযায়ী, দক্ষিণবঙ্গে প্রবল বর্ষণের সম্ভাবনা থাকলেও কলকাতায় সেই রকম জোরালো বর্ষণের সম্ভাবনা নেই। তবে সকাল থেকেই আকাশ গম্ভীর থাকবে। শহর জুড়ে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত এর সম্ভাবনা রয়েছে। বাতাসে আর্দ্রতা বেশি থাকার জন্য অসস্তি বাড়তে পারে। রবিবার কলকাতায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা 34°C সর্বনিম্ন তাপমাত্রা 27°C।

    See also  কিভাবে লোকপ্রিয় হয়ে উঠলো সূরা প্রেমীদের ভালোবাসা 'ওল্ড মঙ্ক'? জানুন পুরো কাহিনী

    আবহাওয়া

    আবহাওয়া দপ্তর এর তরফ থেকে জারি করা হয়েছে সর্তকতা!

    বঙ্গোপসাগরের উপর ঘনীভূত হচ্ছে প্রবল নিম্নচাপ। আর এই জন্যই মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করেছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর। তবে যে সমস্ত মৎস্যজীবী আগেই সমুদ্রে চলে গেছেন তাদেরকে শীঘ্রই ফিরে আসতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।মৌসুমী অক্ষরেখা গোয়া ও মালদা হয়ে মণিপুর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর ফলে উত্তরবঙ্গে বর্ষণের পরিমাণ দ্রুত বাড়তে চলেছে। অন্যদিকে, বঙ্গোপসাগরের বুকে উত্তরপূর্ব ও সংলগ্ন পূর্ব মধ্য এলাকায় একটি নিম্নচাপ তৈরি হবে। তবে মৌসুমী অক্ষরেখা তার স্বাভাবিক অবস্থানে রয়েছে। মৌসুমী অক্ষরেখাটি গঙ্গানগর, হিসার, হামিরপুর, গয়া, কলকাতা হয়ে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।

    ঘূর্ণাবর্তটি কচ্ছ এবং সংলগ্ন এলাকার ওপরে অবস্থান করছে, যা দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে বলে মনে করছে আবহাওয়া দপ্তর।

    এখন দেখে নেওয়া যাক উত্তরবঙ্গ দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন অঞ্চলের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা(°C)।

    • আসানসোল 35.1°C
    • বাঁকুড়া 34.3°C
    • বহরমপুর 36.6°C
    • বর্ধমান 35.6°C
    • কোচবিহার 34.4°C
    • দার্জিলিং 23°C
    • কৃষ্ণনগর 34.4°C
    • পানাগড় 35.5
    • শ্রীনিকেতন 35.4°C