Skip to content

মৃত্যুর পর পরিবারের সদস্যদের জন্য কত টাকার সম্পত্তি রেখে গেলেন ভারতীয় প্লেব্যাক গায়ক KK

  • June 1, 2022

সংগীত জগতে ফের নক্ষত্র পতন! কে কে (KK) নামে পরিচিত গায়ক কৃষ্ণকুমার কুনাথ (Krishnakumar Kunnath) গত রাত্রে(31 may) মারা গেলেন। 53 বছর বয়সী এই জনপ্রিয় গায়ক কলকাতায় একটি সঙ্গীত অনুষ্ঠানে ছিলেন। গানের অনুষ্ঠানের পর হঠাৎই ভেঙ্গে পড়েন এই প্লেব্যাক গায়ক। পরে তাকে শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

কে কে এর আগে কলকাতায় নজরুল মঞ্চে তার সঙ্গীত অনুষ্ঠানের ছবি পোস্ট করেছিলেন। তার মৃত্যুর খবর গণমাধ্যমে আসতেই সঙ্গীত জগতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এই সবের মাঝে, আজ এই পোস্টে আমরা সিঙ্গার কেকে-এর ক্যারিয়ার, মোট সম্পদ এবং পরিবার সম্পর্কে জানব।

KK

• গায়ক কে কে এর মোট সম্পত্তি…

প্রখ্যাত গায়ক গত কয়েক বছর ধরে বলিউড থেকে দূরে ছিলেন, তবুও তিনি কোটি কোটি টাকার সম্পদের মালিক। celebsagewiki.com এর মতে, তার মোট সম্পদ ছিল 1 থেকে 3 মিলিয়ন ডলার। তার আয়ের প্রধান উৎস আসত গান গেয়ে অনুষ্ঠান। মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, কেকে একটি হিন্দি গানের জন্য প্রায় 3 থেকে 4 লক্ষ টাকা পারিশ্রমিক নিতেন।

KK

• কেকের গানের ক্যারিয়ার…

1994 সালে, কে কে সংগীত জগতে ব্রেক পাওয়ার জন্য লুইস ব্যাঙ্কস, রঞ্জিত বারোট এবং লেসলি লুইসকে ডেমো টেপগুলি দেন। তাকে ইউটিভি দ্বারা ডাকা হয়েছিল এবং একটি সান্তোজেন স্যুটিং বিজ্ঞাপনের জন্য একটি গান গেয়েছিল। চার বছরের ব্যবধানে, তিনি 3,500 টিরও বেশি জিঙ্গেল গেয়েছেন। তিনি মুম্বাইতে ইউটিভি থেকে জিঙ্গেল গাওয়ার জন্য প্রথম ব্রেক পান।

তিনি লেসলি লুইসকে মুম্বাইতে তার প্রথম জিঙ্গেল দেওয়ার জন্য তার পরামর্শদাতা হিসাবে বিবেচনা করেন। কে কে প্লেব্যাক গায়ক হিসেবে এ আর রহমানের হিট গান ‘কাল্লুরী সাল’ এবং ‘হ্যালো ডক্টর’ দিয়ে লঞ্চ করা হয়েছিল। সালমান খানের ‘হাম দিল দে চুকে সনম’-এর ‘তড়প তড়প’ গানের মাধ্যমে বলিউডে ডেবিউ করার সুযোগ পান তিনি। যদিও এই গানের আগে তিনি গুলজারের মাছিস-এর ‘ছোড় আয়ে হাম’ গানের একটি ছোট অংশ গেয়েছিলেন।

KK

• কে কে এর ব্যক্তিগত জীবন এবং প্রথম দিকের কর্মজীবন…

হিন্দু মালয়ালি বাবা-মা সি.এস. মেনন এবং কুনাথ কনকভাল্লির ঘরে জন্ম, কৃষ্ণকুমার কুন্নাথ ওরফে কেকে তার শৈশব নতুন দিল্লিতে অতিবাহিত করেন। বলিউডে প্রবেশের আগে কে কে 3,500 টি জিঙ্গেল গেয়েছিলেন। তিনি দিল্লির মাউন্ট সেন্ট মেরি স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র এবং দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের কিরোরি মাল কলেজের স্নাতক। 1999 ক্রিকেট বিশ্বকাপে ভারতীয় ক্রিকেট দলকে সমর্থন করার জন্য তিনি ‘ভারত কে জোশ’ গানটি গেয়েছিলেন।

তাঁর এই গানে মেতে ওঠেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়রা। কে কে তার শৈশবের প্রেমিকা জ্যোতিকে 1991 সালে বিয়ে করেন। তার ছেলে নকুল কৃষ্ণ কুন্নাথ তার সাথে তার অ্যালবাম হামসফর থেকে একটি গান গেয়েছেন। KK-এর তমরা কুনাথ নামে একটি কন্যাও রয়েছে, যিনি KK-এর মত পিয়ানো বাজাতে পছন্দ করেন।

হিন্দু মালয়ালি বাবা-মা সি.এস. মেনন এবং কুনাথ কনকভাল্লির ঘরে জন্ম, কৃষ্ণকুমার কুন্নাথ ওরফে কেকে তার শৈশব নতুন দিল্লিতে অতিবাহিত করেন। বলিউডে প্রবেশের আগে কে কে 3,500 টি জিঙ্গেল গেয়েছিলেন। তিনি দিল্লির মাউন্ট সেন্ট মেরি স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র এবং দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের কিরোরি মাল কলেজের স্নাতক। 1999 ক্রিকেট বিশ্বকাপে ভারতীয় ক্রিকেট দলকে সমর্থন করার জন্য তিনি ‘ভারত কে জোশ’ গানটি গেয়েছিলেন।

তাঁর এই গানে মেতে ওঠেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়রা। কে কে তার শৈশবের প্রেমিকা জ্যোতিকে 1991 সালে বিয়ে করেন। তার ছেলে নকুল কৃষ্ণ কুন্নাথ তার সাথে তার অ্যালবাম হামসফর থেকে একটি গান গেয়েছেন। KK-এর তমরা কুনাথ নামে একটি কন্যাও রয়েছে, যিনি KK-এর মত পিয়ানো বাজাতে পছন্দ করেন।