Skip to content

LPG: এই নিয়মগুলো মেনে চললে আপনার রান্নার গ্যাস চলবে বহুদিন

    বর্তমানে রান্নার গ্যাসের (LPG) দাম অনেক দ্রুত হারে বেড়ে গেছে। এই অবস্থায় মধ্যবিত্ত পরিবার গুলির মাথায় হাত। এখন প্রায় প্রতিটি পরিবারই গ্যাসে রান্না করার উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। তাই এখন এই অতিরিক্ত মূল্য বৃদ্ধি দুশ্চিন্তার কারণ হলেও কিছু করার নেই। গ্যাস আপনাকে ভরতে হবেই। তবে আপনি প্রতিদিন কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করে রান্নার গ্যাস সঞ্চয় করতে পারেন। এর ফলে আপনার রান্নার গ্যাস সাধারণের থেকে কিছুদিন বেশি চলবে।

    আসুন সেই পদ্ধতি গুলি জেনে নেওয়া যাক:

    1. রান্নার কাজে যতটা সম্ভব প্রেসার কুকার ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। কারণ প্রেসার কুকারে খুব কম সময়ে কম গ্যাস(LPG) খরচ করে তাড়াতাড়ি রান্না হয়। এতে গ্যাস সঞ্চয় হবে।

    2. বার্নার এ বাসন বসানোর পূর্বে দেখে নেবেন বাসনের তলা টি সম্পূর্ণভাবে শুকিয়েছে কিনা। যদি ভিজে থাকে সে ক্ষেত্রে অতিরিক্ত 1 থেকে 2 মিনিট বাসন টি গরম হতে সময় লাগবে। এবং বেশি গ্যাস খরচ হবে।

    3. গ্যাসে রান্না চাপানোর আগে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র হাতের কাছে এনে রেখে নিন তারপর রান্না চাপান। কারণ গ্যাসে রান্না চাপিয়ে জিনিসপত্র জোগাড় করতে গেলে অতিরিক্ত গ্যাস খরচ হবে।

     

     

    4.যদি আপনার সারাদিন অনেকবার ফোটানো জল প্রয়োজন হয় সে ক্ষেত্রে বারবার জল না ফুটিয়ে একবারে অনেকটা জল ফুটিয়ে নিন এবং থার্মোফ্লাক্স এ ভরে রাখুন।

    5. রান্নায় প্রয়োজনের অতিরিক্ত জল ব্যবহার করবেন না। পরিমিত হারে জল দিন যতটা দরকার। কারণ সেই অতিরিক্ত জল বাষ্পীভূত হতে অতিরিক্ত গ্যাস খরচ হয়।

    See also  দক্ষিণেশ্বরের নিকটেই স্থিত এই জাগ্রত আদ্যাপীঠ মন্দির, যেখানকার অলৌকিক কাহিনী শুনলে অবাক হবেন!

    6. খাবার ফুটতে শুরু করলে গ্যাসের বার্নার এর নব কমিয়ে দিন । এবং বাকি রান্না কম আঁচে সেরে ফেলুন। এতে গ্যাস খরচ কম হবে।

    7.বাড়িতে যদি মাইক্রোওয়েভ থাকে তাহলে খাবার গরম করার ক্ষেত্রে মাইক্রোওয়েভ ব্যবহার করুন।

    LPG

    8. রান্না করার সময় খাবার ঢাকা দিয়ে দেবেন। ইতি রান্না তাড়াতাড়ি হবে এবং গ্যাস(LPG) কম পুড়বে।

    9. ফ্রিজ থেকে বের করে কোন উপকরণ সরাসরি রান্নায় ব্যবহার করবেন না। রান্না করার কিছুক্ষণ পূর্বে ফ্রিজ থেকে উপকরণটি বের করে রেখে দিন। এবং সাধারণ তাপমাত্রায় আসতে দিন তারপর গ্যাস এ বসান। এতে গ্যাসের সাশ্রয় হয়

    10. মাঝেমধ্যেই গ্যাসের সমস্ত উপকরণ গুলি পরীক্ষা করুন। গ্যাসের পাইপ, রেগুলেটর, বার্নার ঠিকঠাক আছে কিনা তা নিয়মিত দেখুন। কারণ অনেক সময় এই কোথাও লিকেজ থাকলে তার মাধ্যমে গ্যাস বেরিয়ে যায়। এবং খুব জলদি গ্যাস শেষ হয়ে যায়। এছাড়াও রান্না শেষ হয়ে যাওয়ার পর গ্যাসের নব বন্ধ করতে ভুলবেন না। এইসব পদ্ধতিগুলি অবলম্বন করুন এবং গ্যাস সাশ্রয় করুন।