Skip to content

ই-শ্রম কার্ডের গ্রাহকদের মানতে হবে এই নিয়মগুলি নাহলে বাতিল হয়ে যাবে আপনার কার্ড

    দেশের অসংগঠিত ক্ষেত্রে কর্মরত শ্রমিকদের বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধা প্রদান করার উদ্দেশ্যে কেন্দ্র সরকার কর্তৃক ই- শ্রম (e-SHRAM) কার্ড এর সূচনা করা হয়। 2021 সালের সেপ্টেম্বর মাস থেকে ই- শ্রম(e-SHRAM) পোর্টাল চালু করা হয়। এই প্রকল্পে দেশের শ্রমিকরা নিজের নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন। 16 বছর থেকে 56 বছর বয়সের ব্যক্তিরা এই ই- শ্রম(e-SHRAM) পোর্টালের নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন। যেখানে শ্রমিকের ব্যক্তিগত তথ্য সহ ব্যাংক একাউন্ট এর তথ্য নথিভুক্ত করা থাকবে।

    ই- শ্রম(e-SHRAM) পোর্টালের নাম নথিভুক্ত অথবা রেজিস্ট্রেশন করালে শ্রমিকরা একটি ই- শ্রম(e-SHRAM) কার্ড পাবে। সেই কার্ডে একটি ইউনিভার্সাল অ্যাকাউন্ট নাম্বার (UAN) থাকবে। তবে কোন কোন কাজে কর্মরত শ্রমিকরা এই কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবে তার বিশেষ তালিকা রয়েছে। সেই তালিকার বাইরে কর্মরত শ্রমিকরা যদি এই কার্ডের আবেদন করেন তাহলে সমস্যা হলেও হতে পারে।

    E-Shram

    এই ই- শ্রম(e-SHRAM) কার্ড টি পাওয়ার জন্য যদি আপনি ভুল তথ্য দিয়ে থাকেন তাহলে আপনার আবেদন বাতিল করা হবে। ব্যক্তিগত তথ্য সহ ব্যাংক একাউন্ট এর বিভিন্ন তথ্য ভুল দিলে জালিয়াতি হিসেবে বিবেচনা করা হবে। কোন ব্যক্তি যদিই- শ্রম(e-SHRAM) কার্ডের জন্য যোগ্য না হলেও এই প্রকল্পের আবেদন করে থাকেন তাহলে সরকার চাইলে জালিয়াতির মামলা করতে পারে সেই ব্যক্তির উপর।

    এই প্রকল্পে শুধুমাত্র অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকরা আবেদন করতে পারবেন। কোন শ্রমিক যদি ভাড়া বাড়িতে থাকেন তাকেও এই প্রকল্পে আবেদন করার সুযোগ দেওয়া হবে। এবং কোন শ্রমিক যদি রাজ্য বীমা কর্পোরেশন (ESIC) অথবা ভবিষ্যৎ তহবিল সংস্থার (EPFO) সদস্য নন তারাও এই ই- শ্রম (E-SHRAM) পোর্টালে নিজের নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন।

    See also  বিলাসবহুল অ্যান্টিলিয়ার ২৭ তলায় থাকেন মুকেশ আম্বানি ও তার পরিবার! ২৭ তলায় থাকার আসল কারণ কি

    অর্থাৎ আপনি যদি ই- শ্রম (e-SHRAM) পটালে নিজের নাম নথিভুক্ত করতে চান তাহলে অফিসের ওয়েবসাইট থেকে সমস্ত বিশদ বিবরণ জেনে তবেই আবেদন করুন। অফিসিয়াল ওয়েবসাইটটি হল https://eshram.gov.in/home