Skip to content

এই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে ১৯৯৪ সালে বিশ্বসুন্দরী খেতাব জিতেছিলেন ঐশ্বর্যা রাই

  • January 7, 2022

বিশ্ব সুন্দরী (Miss World) হওয়ার স্বপ্ন প্রতিটি মেয়েই দেখে কিন্তু এই স্বপ্ন সবার পূরণ হয় না। যাইহোক, আপনি অবশ্যই জানেন যে সারা বিশ্বে যে সমস্ত সৌন্দর্য প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়, বিজয়ীদের শুধুমাত্র তাদের সুন্দর চেহারার জন্য নয়, তাদের বোঝাপড়া এবং চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য ও দেখা হয়। বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে উপস্থিত কিছু ভারতীয় সুন্দরীদের যেমন সুস্মিতা সেন, ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন, মানুষী চিল্লার এনারা এক একজন ক্লাসিক উদাহরণ।

Aishwarya Rai miss world

যদি আমরা 2017 সালের কথা বলি, তাহলে মিস ওয়ার্ল্ড মানুশি চিল্লার তার উদারতা এবং সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়ার কাজের জন্য পরিচিত, ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনের(Aishwarya Rai Bachchan) কথা বলতে গেলে তিনি 1994 সালে মিস ওয়ার্ল্ডের খেতাব জিতেছিলেন। এ সময় তাকে একটি প্রশ্ন করা হলে তিনি খুব সুন্দর উত্তর দেন। মিস ওয়ার্ল্ড 1994 প্রতিযোগিতায় ঐশ্বরিয়ার উত্তর স্পষ্ট করে দেয় কেন তিনি ওই খেতাব জিতেছিলেন।

আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে যে সেই সময় ঐশ্বরিয়াকে কী প্রশ্ন করা হয়েছিল? বিষয়টি এত পুরানো, আমরা অনেকেই এই সম্পর্কে অবগত নই, তবে আমরা আপনাকে বলি যে ঐশ্বরিয়া যখন এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে এসেছিলেন, তখন তাকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল যে একজন মিস ওয়ার্ল্ডে কী কী গুণাবলী থাকা উচিত?

যার জবাবে ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন বলেন, ‘আমরা এখন যত মিস ওয়ার্ল্ড দেখেছি, তাদের সবারই সমবেদনা ছিল। শুধু প্রবীণদের জন্যই নয়, যাদের কিছুই নেই তাদের প্রতিও তাঁর মমতা ছিল। আমরা এমন লোকদের দেখেছি যারা মানবসৃষ্ট বাধা – জাতীয়তা এবং রঙের বাইরে দেখতে পারে। আমাদের তার চেয়ে বেশি দেখতে হবে তবেই একজন সত্যিকারের মিস ওয়ার্ল্ড আবির্ভূত হবে। এবং তিনিই একজন সত্যিকারের মানুষ রূপে বিবেচিত হওয়ার যোগ্য।’

শুধু তাই নয়, আমরা আপনাকে জানিয়ে রাখি যে সেই সময়ে অনুষ্ঠিত মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় 87 টি দেশের প্রতিযোগীরা অংশ নিয়েছিল, কিন্তু এই সবকে পিছনে ফেলে ঐশ্বরিয়া শুধু তার সৌন্দর্যের জোরেই নয়, বুদ্ধিমত্তার শক্তিতেও মানুষের মন জয় করেছিলেন। সেই সময় ঐশ্বরিয়ার বয়স ছিল মাত্র 21 বছর এবং তিনি স্থাপত্য (architecture) নিয়ে পড়াশোনা করছিলেন।

Aishwarya Rai Bachchan Miss World

নিজের মেধার জোরে তিনি চলচ্চিত্র জগতে পরিচিতি লাভ করেছেন। ‘অর পেয়ার হো গয়া’ সিনেমার মধ্য দিয়ে বলিউডে তার ক্যারিয়ার শুরু হয়। এর পরে, তিনি তার ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত হাম দিল দে চুকে সনম, তাল, গুজারিশ, অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিলের মতো ছবিতে কাজ করেছেন এবং অসাধারণ অভিনয় করেছেন।

ঐশ্বরিয়ার এসব গুণের কারণে আজও দর্শকরা তাকে অনেক ভালোবাসা ও সম্মান দেন। এখন ঐশ্বরিয়াও বিবাহিত এবং তিনি এখন বচ্চন পরিবারের পুত্রবধূ। ঐশ্বরিয়ার জীবনের যাত্রা এত সহজ ছিল না, তিনি যা কিছু অর্জন করেছেন, তিনি তার প্রতিভার জোরে অর্জন করেছেন।